মঙ্গলেশ ডবরাল-এর কবিতা


মূল হিন্দি থেকে অনুবাদ

অজিত দাশ


[৯ ডিসেম্বর ২০২০ করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন হিন্দি সাহিত্যের স্বনামধন্য কবি মঙ্গলেশ ডবরাল। হিন্দি ভাষার আরেক কবি রঞ্জনা মিশ্রের ইমেল প্রতিউত্তরে সেদিন জানতে পেরেছিলাম কবির মৃত্যুর খবর। ইতিপূর্বে দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত হিন্দি ভাষার আরেক সুপরিচিত তরুণ কবি-বন্ধু পরাগ পাবন মেসেঞ্জার আলাপে হিন্দি সাহিত্যের উল্লেখযোগ্য বেশ কিছু কবিদের মধ্যে মঙ্গলেশ ডবরাল এর নামও উল্লেখ করেছিলেন। হিন্দি ভাষার অনলাইন আর্কাইভ কবিতাকোষ-এ মঙ্গলেশ ডবরালের প্রায় অধিকাংশ কবিতাই রয়েছে। সে সময়ে তত মনযোগ দিয়ে না পড়লেও তাঁর মৃত্যুর পর তার কয়কটি কাব্যগ্রন্থ, পাহাড় পর লালটেন, ঘর কা রাস্তা, হাম যো দেখতে হ্যাঁয়, আওয়াজ ভি এক জগাহ হ্যাঁয় বেশ মনযোগ দিয়েই পড়েছি। তাঁর কবিতার বিষয় এবং উপস্থাপনার নতুনত্ব হিন্দি সাহিত্যের পাঠকদের মাঝে বেশ প্রশংসা পেয়েছে। বামপন্থি চিন্তাধারায় বিশ্বাসী হিন্দি ভাষার এই জনপ্রিয় কবি তাঁর কবিতায় তুলে ধরেছেন সমাজ-বৈষম্যের সাংকেতিক চিহ্নসমূহ। তাঁর কাব্য চেতনাকে কবির অন্তর্নিহিত পরিভ্রমণ বলে মনে হলেও মূলত তাঁর মৃদু অথচ তীক্ষ্ম কণ্ঠস্বরে বরাবর উঠে এসেছে পুঁজিবাদী উন্মাদনা, সাম্রাজ্যবাদী শক্তির প্রতি তীব্র শ্লেষ। সামাজিক নিপীড়ন থেকে শুরু করে, ভারতীয় বর্ণপ্রথা, সাম্প্রদায়িকতার মতো বিষয়গুলোতেও তিনি সোচ্চার ছিলেন সবসময়।

ভারতের উত্তরাখন্ড রাজ্যের পার্বত্য জেলার প্রত্যন্ত গ্রাম কাফলপানীতে ৯ মে ১৯৪৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন মঙ্গলেশ ডবরাল। দেরাদুনে

শিক্ষাজীবনের পাঠ চুকিয়ে চলে যান দিল্লীতে। ১৯৬০ এর শেষ দিকে হিন্দি পেট্টিওট, ভারতভবন এবং আশেপাশের বেশ কিছু দৈনিকে কাজ করার পর ভুপাল মধ্যপ্রদেশ কলা পরিষদ, ভারতভবন থেকে প্রকাশিত ম্যাগাজিন পূর্বাগ্রহ-তে সহযোগী সাহিত্য সম্পাদক হিসেবে নিযুক্ত হন। সেখানে বেশ কয়েকবছর কাজ করার পর সত্তর দশকের শেষের দিকে জনসত্তা পত্রিকার সম্পাদক হন। সাহারা সময় পত্রিকায় কাজ করার পূর্বে এলাহবাদ ও লখনউ থেকে প্রকাশিত ‘অমৃত প্রভাত’ এর মতো পত্রিকাতেও তিনি সম্পাদনা করেন। এর পাশাপাশি কনসাল্টট্যান্ট হিসেবে ভারতের ন্যাশনাল বুক ট্রাস্ট এবং হিন্দি মাসিক পত্রিকা ‘পাবলিক এজেন্ডা’র সম্পাদক হিসেবেও কাজ করেছেন দীর্ঘদিন।

সত্তরের দশকে নকশাল আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে কবি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন ডবরাল। ভারতের সিপিআই-এমএলের সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘জনসংস্কৃতি মঞ্চে’র সঙ্গে আজীবন যুক্ত ছিলেন। সেই সময়ে পুঁজিবাদের অন্তর্নিহিত ভয়াবহতা, মুক্ত বাজার অর্থনীতির বিভ্রান্তি ও হুমকিগুলো গভীরভাবে অনুধাবন করতে পেরেছিলেন তিনি। ২০০২ সালে গুজরাট দাঙ্গার প্রেক্ষাপটে বেশ কয়েকটি সেরা হিন্দি কবিতাও রচনা করেছেন তিনি।
মূলত ‘জনসত্তা’-র রবিবার পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে প্রভূত খ্যাতি লাভ করেন মঙ্গলেশ ডবরাল। এই পত্রিকায় কাজ করার সময় থেকে নতুন প্রজন্মের অসংখ্য হিন্দি তরুন কবি ও লেখকদের তিনি পথ দেখিয়ে গেছেন। তাঁর অসামান্য লেখনির জাদুতে তিনি সাহিত্য ও সাংবাদিকতার মধ্যে এক আশ্চর্য যোগসূত্র স্থাপন করে গেছেন।

ডবরাল ‘হাম যো দেখতে হ্যাঁয়’ কাব্যগ্রন্থের জন্য ২০০০ সালে সাহিত্যে ভারত সরকারের দেওয়া সর্বোচ্চ সম্মান ‘সাহিত্য অকাদেমি’ পুরস্কার-এ ভূষিত হন। তাঁর কবিতাগুলো প্রধান ভারতীয় ভাষা সহ ইংরেজি, রাশিয়ান, জার্মান, ডাচ, স্প্যানিশ সহ আরো বেশ কয়েকটি ভাষায় অনূদিত হয়েছে।]

বর্ণমালা

একটা ভাষায় অ লিখতে চাই
অ-তে অজগর অ-তে অপূর্ব
অথচ লিখতে হয় অ-তে অনর্থ, অ-তে অত্যাচার
চেষ্টা করি ক-তে কলম অথবা করুণা লিখতে
অথচ লিখতে থাকি ক-তে ক্ররতা, ক-তে কুটিলতা
এতদিন খ-তে লিখে এসেছি খরগোশ
অথচ এখন খ-তে খবরদারের পদধ্বনি শুনতে পাই
ভেবেছি ফ-তে শুধু ফুলই লেখা হয়
অনেক অনেক ফুল—ঘরের বাইরে,
ঘরের ভিতর, মানুষের ভিতর
অথচ আমি দেখি সব ফুল চলে যাচ্ছে
নির্দয়, পাষাণদের গলায় দেওয়ার জন্য

কে যেনো আমার হাত চেপে ধরে আর বলে—
ভ-তে লেখ ভয় যা এখন সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে!
দ-তে দমন আর প-তে পতনেরই সংকেত
আততায়ীরা ছিনতাই করে নেয় আমাদের সব বর্ণমালা
তারা ভাষার হিংসাকে বদলে দেয় সমাজের হিংসায়
এখন হ-কে হত্যা লেখার জন্য সুরক্ষিত করা হয়েছে

আমরা যতই হ-তে হল অথবা হরিণ লিখিনা কেন
তারা প্রতিবার হ-তে হত্যা লিখতে থাকবে।

শব্দ

কিছু শব্দ চিৎকার করে
কিছু শব্দ তাদের পোষাক ছিঁড়ে
ঢুকে পড়ে ইতিহাসে
কিছু শব্দ নীরব হয়ে যায়।

অন্তরাল

রাতের সবুজ পাহাড় শিয়রে এসে দাঁড়ায়,
পাহাড়চূড়া থেকে ধেয়ে আসা তোমার আওয়াজ
পলেস্তরা খসা আমার ঘরে এসে পড়ে
আর ফেলে আসা দৃশ্যের আবহ সঙ্গীতে
পরিশ্রুত হয়ে আসে তোমার দেহবর্ষণ
পাথরে নুইয়ে থাকা ঘাস
স্ব-ইচ্ছায় অজস্র ঝড়ে পড়ে
এক নির্গন্ধ মৃত্যু আর সেই সব—
যা দিয়ে তৈরি তোমার দেহ লাবণ্য
ফিরে আসে আমার রক্তের স্রোতে
আবারও টেনে হেঁচড়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য।

এই সেই চোখ

করুণা আর ক্রুরতা গলাগলি করে আছে
কিছুটা গৌরব গভীর শরমে ডুবে আছে
লড়াই করার বয়স যখন
লড়াই ছাড়া অবসর কেটে যাচ্ছিল—
সেখানে কোনো যুদ্ধ শেষে
ফিরে আসা সৈনিকের যাতনা রয়েছে
আর এই সেই চোখ যে আমাকে বলেÑ
প্রেম— যার ভেতর আর সব টিকে আছে
কতটা বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ধীরে ধীরে

প্রেম

কোনো এক বড় দার্শনিক
একবার আমাকে বলেছিলেন—
প্রেম একটা ভারী পাথরের মতো
কি করে তোমার মতো দুর্বল
সেই পাথরের ভার বহন করবে!

আমি ভেবেছি, সেই পাথরকে
টুকরো-টুকরো করে কেটে কাঁধে নেব

কিন্তু তখন কোথায় থাকবে সেই প্রেম
সেটা হবে একটা হত্যাকাণ্ড!

কোনোদিন

কোনোদিন
দেওয়ালে পীঠ ঠেকে যাবে আমার
আমি যে আলোয় বসে বসে
কবিতা বাছি

কোনোদিন
আমার কাপড় ভেসে যাবে নদীতে
চিঠিগুলুতে ধূলো জমে যাবে
ঘরে সাপ ঢুকে পড়বে কোনোদিন

কোনোদিন
মুখের স্বাদ চলে যাবে
হাতের রেখা অদৃশ্য হয়ে যাবে
রাতের বেলা বই চুরি হয়ে যাবে
চশমা দ্রুত ভেঙ্গে যাবে

কোনোদিন
শুধু দেওয়ালই থেকে যাবে
যেখানে আমার পীঠ ঠেকিয়ে দেব।

পাতার মৃত্যু

কতগুলো পাতা উড়ে আসে অবিরত
আমার মুখের উপর
ছেলেবেলার সেই গাছগুলো থেকে
এক নদী তার ঢেউ পাঠিয়ে দেয় আমার কাছে
আর সেই ঢেউয়ের মতো কাঁপতে থাকে রাত
আর সে রাতে মুখের উপর
মৃত পাতাদের নিয়ে পথ চলতে থাকি আমি

পাখির ডাক ফুরিয়ে গেছে
নেই কোনো মানুষের আনাগোনা
সূর্যের আলো ছাই হয়ে পড়ে আছে
রাস্তার দুপাশে, ঘরের দরজা বন্ধ!
আমি ডাক দেই আর সে ডাক
পুনরায় ফিরে আসে আমার কাছে।

ছায়া

ছায়া ততটাই জীবিত
যতটা তুমি
তোমার আগে পিছে
অথবা তোমার ভেতরে
লুকিয়ে রয়েছে
অথবা সেইখানে
যেখান থেকে তুমি
চলে এসেছ।

Share With:

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Start typing and press Enter to search